প্রেমের টানে পঞ্চাশোর্ধ নারী যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেনীতে

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক
প্রকাশিত: ৪ জুন ২০২৪, ১৯:০৬
...
প্রেমের টানে সুদূর যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে ছুটে এসেছেন পঞ্চাশোর্ধ এক মার্কিন নাগরিক। শুধু তাই নয় নিজের বয়সের চেয়ে ৩০ বছরের ছোট এক যুবককে বিয়ে করতে হয়েছেন ধর্মান্তরিত। খ্রিষ্টান ধর্মত্যাগ করে মুসলিম হয়ে গত সোমবার বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন সেন্ডোরা ব্রোক্সে ওরফে লামিয়া (৫৫)। বর তার চেয়ে অর্ধেকেরও কম বয়সী জামশেদ আলম রাজু (২৫)। এমন ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

জামশেদ আলম রাজু ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব সফরপুর গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে। সেন্ডোরা ব্রোক্সে ওরফে লামিয়া যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া শহরের বাসিন্দা।

সোনাগাজীর ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জামশেদ আলম রাজু জানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময়ে তার সাথে পরিচয় হয় যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া শহরের বাসিন্দা সেন্ডোরার। বন্ধুত্বের পাশাপাশি উভয়ের মধ্যে ভালোলাগা থেকে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। এক পর্যায়ে দু'জন সিদ্ধান্ত নেন বিয়ের। সেই সূত্রে গত ২রা জুন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে আসেন সেন্ডোরা।রাজু আরও জানান, বাংলাদেশে এসে সেন্ডোরা খ্রিষ্টান ধর্মত্যাগ করে ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেন। মুসলিম হওয়ার পর সেন্ডোরার নাম রাখা হয়েছে লামিয়া।

তিনি (রাজু) ও লামিয়া (সেন্ডোরা) সোমবার আদালতে হাজির হয়ে হলফনামা দিলে ফেনীর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অপরাজিতা দাশ তা মঞ্জুর করেন। পরে সোমবার বিকেলে ফেনীর একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে ইসলাম ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী আমাদের বিয়ে হয়।

রাজু আরও বলেন, সেন্ডোরা আমাকে ভালোবেসে বাংলাদেশে এসেছে। সে আমার জন্য তার নিজ ধর্ম ত্যাগ করেছে। সুখে-দুঃখে আমরা একসঙ্গে থাকতে চাই বলে দুজনে অঙ্গীকার করেছি। আমাদের বিয়েতে আমার পরিবারের স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। তবে এখন আমি ও আমার স্ত্রী হোটেলে অবস্থান করছি। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে স্ত্রীকে নিয়ে বাড়িতে যাব। বিয়ের সময় তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সেন্ডোরা বলেন, আমার অনেক ভালো লাগছে। আমি এখন ভালো আছি।

এদিকে, বিদেশি বধূকে দেখতে রাজুর বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছেন স্থানীয়রা। তবে নববধূ বাড়িতে না যাওয়ায় হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন আগত লোকজন। এমন বিয়ের খবর শুনে খুশি হয়েছেন রাজুর স্বজন ও এলাকাবাসী।

যুক্তরাষ্ট্রের নারীকে বিয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুদ্বিপ রায় পলাশ জানান, স্থানীয় সাংবাদিকদের মাধ্যমে এমন তথ্য শুনেছি। তবে ওই নারী সোমবার রাত পর্যন্ত তার থানা এলাকায় আসেনি। তিনি ফেনীতে একটি হোটেলে উঠেছেন বলে জেনেছি।

সর্বশেষ