মাস্ক পরুন, হিংস্র হয়ে উঠছে কোভিড


প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০০:০৯
...
কোভিড-১৯ এর একটা হিংস্র রূপ আবারও হামাগুড়ি দিয়ে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। যুক্তরাষ্ট্রে পরিস্থিতি ক্রমেই তীব্রতার দিকে যাচ্ছে। পাশের দেশ কানাডার পরিস্থিতি ভিন্ন কিছু নয়। সেখানে প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা সাধারণের উদ্দেশ্যে বলেছেন, মাস্ক প্রস্তুত রাখুন।

সামাজিক মাধ্যমগুলোতে দেখা যাচ্ছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। কোভিডের এহেন পরিস্থিতি সকলকেই আতঙ্কিত করেছে। কেউ কেউ পরিস্থিতি সামাল দিতে না পারায় কর্তৃপক্ষের ওপর ক্ষুব্ধ। তবে অনেকেই বলেছেন, কোভিডের রাজত্ব ফের আসছে, মাস্ক পরা শুরু করুন।

কানাডার পাবলিক হেলথ অফিসার ড. থেরেসা ট্যাস এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, আমি আশা রাখি, জনগণ তাদের মাস্ক পরার অভ্যাস ভুলে যায়নি। ফলে, কেবল যে কোভিডের জন্য তা নয়, এই শ্বাসকষ্টজনিত ভাইরাসের মওসুমে তারা এমনিতেই মাস্ক পরবেন। আর তাই এখনই সময় আপনার মাস্ক রেডি রাখুন।

এদিকে ডব্লিউএইচও তার ঘোষণায় বলেছে, কোভিডের মাত্রা ক্রমেই বাড়ছে। এবং ২০২৩ এর এই সময়টিতে তা ২০২০ সালের শুরুর দিকে যেমনটা ছিলো তেমন পরিস্থিতিতেই পৌঁছেছে। আর ক্রমেই তা ২০২১ সালের শেষভাগে যে রূপ নিয়েছিলো সেদিকেই ধাবিত হচ্ছে এমনটা বলছে ওয়েস্টওয়াটার সার্ভিয়েলেন্স। ডব্লিউএইচও বলেছে, যারা বুস্টারের একটি ডোজও নেননি, তাদের এখনই তা নিয়ে নিতে হবে।

আনুষ্ঠানিকভাবে কোভিড-১৯ প্যানডেমিক শেষ হয়ে গেলেও কোভিড শেষ হয়ে যাওয়ার সময় এখনো আসেনি।

ওয়েস্টওয়াটার জানাচ্ছে ২০২০ সালের মার্চে কোভিড-১৯ যখন তার সবচেয়ে ভয়ংকর চেহারাটি দেখায় এরই মধ্যে তখনের চেয়ে খারাপ পরিস্থিতিতে পৌঁছেছে এর রূপ।  ২০২১ সালের ডেল্টা পিকের কাছাকাছি অবস্থান করছে।

বৃহস্পতিবার ওইল্যান্ড জানিয়েছে, সে পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ৬৫০,০০০ জন। এবং বর্তমানে প্রতি ৫১ জন আমেরিকানের মধ্যে ১ জন কোভিড আক্রান্ত হচ্ছে।

এদিকে নতুন একটি বুস্টারের কথা সামনে এসেছে। আর যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেক মানুষই এই বুস্টারের ব্যাপারে অনাগ্রহ দেখাচ্ছেন। রয়টার্সও ইপসসের একটি জরিপে দেখানো হয়েছে ৩০% উত্তরদাতা বুস্টার নিতে ভীষণ আগ্রহী। ২৪% বলেছে, তারা নিতে পারে, সমস্যা নেই। বাকিদের ১৭% বলেছে, তারা খুব একটা নিতে চায় না। আর ৩০ বলেছে, তাদের আদৌ কোনো আগ্রহ নেই।