৯৫ মিলিয়ন বছর আগে ডাইনোসরের দল দক্ষিণ আমেরিকা থেকে অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত বিচরণ করতো


প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২৩, ১৯:০৪
...
অতীতে ডাইনোসররা দক্ষিণ আমেরিকা থেকে অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত ঘোরাফেরা করতো। অস্ট্রেলিয়ায় আবিষ্কৃত প্রায় ১০০ মিলিয়ন বছরের পুরানো সরোপড গোত্রের ডাইনোসরদের খুলি দেখে সেই তথ্য আবিষ্কার করেছেন গবেষকরা। খুলিটি ডায়ামান্টিনাসরাস ম্যাটিলডে নামক একটি প্রজাতির অন্তর্গত বলে মনে করছেন গবেষকরা। এই ডাইনোসরগুলি অত্যন্ত লম্বা ঘাড়ের জন্য পরিচিত। এমন এক একটি ডাইনোসরের ঘাড় একটি স্কুল বাসের চেয়েও বেশ লম্বা হয়। ডি. ম্যাটিল্ডে ছিলো এরকম একটি টাইটানোসর। যাকে আদর করে বিজ্ঞানীরা নাম দিয়েছেন 'অ্যান'। ননভিয়ান ডাইনোসর বিলুপ্ত হওয়ার আগে ক্রিটেসিয়াস যুগের শেষ অবধি (১৪৫ মিলিয়ন থেকে ৬৬ মিলিয়ন বছর আগে) বেঁচে থাকা সরোপোড ডাইনোসরদের এটি ছিলো একমাত্র দল।

জীবাশ্মবিদরা অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে উইনটনের উত্তর-পশ্চিমে একটি ভেড়ার খামার থেকে ২০১৮ সালে নমুনাটি উদ্ধার করেন। ডি. ম্যাটিল্ডে একটি টেনিস কোর্টের মতো লম্বা ছিল প্রায় ৭৮ ফুট এবং ওজন প্রায় ২৭.৫ টন, টাইরানোসরাস রেক্সের চেয়ে তিনগুণ বেশি। এদিকে জীবাশ্মগুলির সাথে আর্জেন্টিনায় পাওয়া হাড়ের অনেক মিল আছে।

গবেষকরা মনে করেন যে সরোপডগুলি অ্যান্টার্কটিকা হয়ে দক্ষিণ আমেরিকা এবং অস্ট্রেলিয়ায় বিচরণ করতো। ডাইনোসরের দেহাবশেষ বিশ্লেষণ করতে গিয়ে অস্ট্রেলিয়ার পার্থের কার্টিন ইউনিভার্সিটির স্টিফেন পোরোপট নামের একজন জীবাশ্মবিদ জানাচ্ছেন,''আমরা সারমিয়েন্টোসরাস মুসাকিওই নামক একটি টাইটানোসরের মাথার খুলি খুঁজে পেয়েছি যেটি দক্ষিণ আমেরিকায় বাস করত, ঠিক একই সময়ে সারমিয়েন্টোসরাসের অনুরূপ ডায়ামান্টিনাসরাস কুইন্সল্যান্ডে বাস করত। যা দেখে আমাদের মনে হচ্ছে ক্রিটেসিয়াসের মধ্যবর্তী সময়ে সরোপডগুলি অ্যান্টার্কটিকা হয়ে অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আমেরিকার মধ্যে যাতায়াত করতো। ''ক্রিটাসিয়াস যুগে অ্যান্টার্কটিকা ছিল গাছপালা দ্বারা আবৃত।

২০১১ সালে অ্যান্টার্কটিকায় প্রথম দীর্ঘ-গলা-ডাইনোসরের জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হওয়ার পর বিজ্ঞানীরা ইতিমধ্যেই জানতেন যে সরোপডগুলি একসময়ে এই হিমায়িত স্থলভাগে ঘুরে বেড়াতো। কিছু বিজ্ঞানী ইতিমধ্যেই মনে করছেন যে এই ডাইনোসরগুলি অ্যান্টার্কটিকাকে সেতু হিসেবে ব্যবহার করে মহাদেশগুলিতে ভ্রমণ করতো। অস্ট্রেলিয়ান মিউজিয়াম অনুসারে, সেই সময়ে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, অ্যান্টার্কটিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকা যুক্ত হয়ে সুপারমহাদেশ গন্ডোয়ানা তৈরি করেছিল। রয়্যাল সোসাইটি ওপেন সায়েন্স জার্নালে বুধবার প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় গবেষকরা অস্ট্রেলিয়ায় সংরক্ষিত সরোপড খুলিটিকে সারা বিশ্বের অন্যান্যদের সাথে তুলনা করেছেন। ডাইনোসরের সেই দেহাবশেষের বিশদ স্ক্যান করে, দলটি একটি সারমিয়েন্টোসরাস খুলির সাথে উল্লেখযোগ্য মিল খুঁজে পেয়েছে যা একইসময়ে দক্ষিণ আর্জেন্টিনার চুবুত প্রদেশে আবিষ্কৃত হয়েছিল। মস্তিস্ক, চোয়ালের জয়েন্ট কাছে মাথার খুলির পিছনের প্রান্তের হাড় এবং দাঁতের আকৃতির সাথে উভয়ের অনেক মিল রয়েছে।

গবেষকরা ইতিমধ্যে সন্দেহ করেছিলেন যে এই দুটি ডাইনোসর ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত, কিন্তু এখন পর্যন্ত, তাদের কাছে প্রমাণের অভাব ছিল। নতুন মাথার খুলি আবিষ্কার সেই ধারণাটিকে প্রমাণ করেছে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। গবেষণা অনুসারে ডাইনোসরের খুলি একটি অত্যন্ত বিরল আবিষ্কার। কয়েকটি দাঁত বাদে, অ্যানের মাথার খুলিটি অস্ট্রেলিয়ায় পাওয়া দ্বিতীয় সরোপড খুলি।

পোরোপট গবেষনায় লিখেছেন, সরোপডের মাথাগুলি তাদের শরীরের আকারের তুলনায় ছোট ছিল। এটি ছোট, সূক্ষ্ম হাড় দিয়ে গঠিত ছিলো। কার্নেগি মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল হিস্ট্রির একজন জীবাশ্মবিদ এবং ২০১৬ সালের গবেষণার সহ-লেখক ম্যাথু লামান্না একটি ইমেলে লাইভ সায়েন্সকে বলেছেন-'এটি এখনো পর্যন্ত আবিষ্কার হওয়া অসাধারণ তথ্য। দক্ষিণ আমেরিকার ডায়ামান্টিনাসরাসের খুলি এবং অনুরূপ বয়স্ক সারমিন্টোসরাসের মধ্যে সাদৃশ্যগুলি বেশ আকর্ষণীয়। এর থেকে বোঝা যায় টাইটানোসররা মধ্য-ক্রিটেসিয়াস সময়ে অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আমেরিকার মধ্যে যাতায়াত করতো, সম্ভবত অ্যান্টার্কটিকার মাধ্যমে।''

সূত্র ; livescience.com

সর্বশেষ